ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ কার্তিক ১৪২৬, ২২ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

আ.লীগের কেউ দুর্নীতি করলেও ছাড় নয় : কাদের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৯-২০ ২:১৮:৪১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৯-২১ ৮:১৬:০৩ এএম

কেবল ছাত্রলীগ-যুবলীগ নয়, আওয়ামী লীগেরও কেউ যদি দুর্নীতির দায়ে দুষ্ট হন, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। শুধু দল নয়, সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়ে সরকার অগ্রসর হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

শুক্রবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ওবায়দুল কাদের এই কথা জানান।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক  বলেন, ‘আমাদের নেত্রী, সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অপকর্মের বিরুদ্ধে অন্যায়, অনিয়ম, দুর্নীতি অপকর্মের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েই অগ্রসর হচ্ছেন।’

দূর্নীতি, অপকর্ম, শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য অনেকেই নজরদারিতে আছেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সময়মত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

‘সারা দেশে যেখানেই অপকর্ম, দুর্নীতি, অনিয়ম হবে, শৃঙ্খলা ভঙ্গ হবে সর্বত্রই একই নিয়মে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা কার্যকর হবে। যুবলীগ-ছাত্রলীগ বিচ্ছিন্ন কিছু নয়। ছাত্রলীগের দুই জনকে অব্যাহতি দেওয়া, যুবলীগের এক জনকে গ্রেপ্তার করা, ক্যাসিনো কেন্দ্রিক যে অভিযান তা ঢালাওভাবে ছাত্রলীগ আর যুবলীগের বিরুদ্ধে নয়। ছাত্রলীগ-যুবলীগে বহু ত্যাগী নেতাকর্মী আছে, তারা অনেক ভালো কাজও করছে। এখানে দুর্নীতি, অনিময়, বিশৃঙ্খলার সঙ্গে যারা জড়িত, যাদের আচরণে পার্টি এবং সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে, ঠিক তাদের বিরুদ্ধেই কেইস টু কেইস খোঁজ খবর নিয়ে অ্যাকশন নেয়া হচ্ছে, আগেও নেয়া হয়েছে।”

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘গুটি কয়েক মানুষের জন্য গোটা পার্টিতো বদনামের ভাগিদার হবে না। এসব অপকর্ম করছে গুটি কয়েক লোক। তারা ছাত্রলীগের, যুবলীগের কিংবা আওয়ামী লীগেরই হোক,যারা এমন কর্মকান্ড করবে, সতর্ক হবে না, প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

সহযোগী সংগঠনের এমন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ায় আওয়ামী লীগ বিব্রত কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘উই আর ভেরি হ্যাপি। আমাদের সরকারপ্রধানের ওপর আমরা খুব খুশি। তিনিই অ্যাকশন নিতে পারেন, কাজেই সরকারপ্রধানের ইমেজ বাড়লে আমাদের পার্টিরও ইমেজ বাড়বে।’

বিএনপি নেতা শামসুজ্জামান দুদুর বক্তব্য প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি এটাকে বিচ্ছিন্ন বক্তব্য বলে মেনে নিতে পারছি না। কারণ বিএনপি নেতারা অতীতেও আমাদের নেত্রীকে হত্যা করা হবে, সরিয়ে দেওয়া হবে, বঙ্গবন্ধু যেই পথে গেছেন, শেখ হাসিনাও সেই পথে যাবেন, এ ধরনের বক্তব্য তারেক জিয়া থেকে বিএনপির অনেক নেতাই দিয়েছেন।’

ঢাকায় ক্যাসিনোর কার্যক্রম বিএনপি শুরু করেছে দাবি করে তিনি বলেন, ‘ঢাকাকে ক্যাসিনোর শহর বানিয়েছে বিএনপি। তাদের সময় এই ক্যাসিনোগুলো ছিল। ক্যাসিনোর ব্যাপারে অ্যাকশনতো নেয়া হচ্ছে। সরকারের প্রথম বছরেই কিন্তু অ্যাকশন নেয়া হয়েছে। সময় তো এখন ফুরিয়ে যায় নি। এমন তো নয় যে, ইলেকশনকে সামনে রেখে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি। আমরা তো প্রথম ৮-৯ মাসেই এসব ব্যবস্থা নেয়া শুরু করেছি।’


এত দিন প্রশাসন কেন ব্যবস্থা নেয়নি-এমন প্রশ্নের জবাবে সরকারের এই মন্ত্রী বলেন, ‘কেউ মদদ দিয়ে থাকলে, কিংবা আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়ে থাকলে পুলিশ কমিশনার বলেছেন, পুলিশের মধ্যেও যদি কেউ এসব অপকর্মের সাথে জড়িত থাকে তবে পুলিশও নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করবে না। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে তাদেরও পরিকল্পনা আছে।’



ঢাকা/পারভেজ/শাহেদ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন