ঢাকা, রবিবার, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৩১ মে ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

প্রণোদনা প্যাকেজ শুভঙ্করের ফাঁকি : রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৬ ৬:১৮:২৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-০৬ ৬:১৮:২৭ পিএম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ মস্ত বড় শুভঙ্করের ফাঁকি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

সোমবার (৬ এপ্রিল) অনলাইন প্রেস বিফিংয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, সাড়ে ৭২ হাজার কোটি টাকাকেই প্রণোদনা প্যাকেজ হিসেবে দেখানো আসলে মস্ত একটা শুভঙ্করের ফাঁকি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে দেড় কোটি মানুষ কর্মচ্যুত হতে যাচ্ছে। এসব মানুষ ও তাদের পরিবারকে খাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। প্রতি পরিবারে ৪ জন করে হিসাব করা হলেও প্রায় ৫ কোটি মানুষকে খাবার সরবরাহ করতে হবে। সেটার কোনো কার্যকর পরিকল্পনা নেই এই প্যাকেজে।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবিলা বা এই সংকটের সবচেয়ে প্রকট ভুক্তভোগী দরিদ্র লোকদের বাঁচানোর জন্য কিছু আছে কি এই প্যাকেজে? ক্ষুধা লকডাউন বোঝে না, কোয়ারেন্টিন বোঝে না, বোঝে না সামাজিক বা শারীরিক দূরত্ব।

তিনি বলেন, পৃথিবীর অন্যান্য দেশে লকডাউন করা হয়েছে এই দিনমজুর শ্রেণির মানুষের খাবারের ব্যবস্থা করে। আর আমাদের দেশে প্রণোদনা প্যাকেজে এই মানুষগুলোর জন্য কিছু নেই। এরা তাহলে কী করবে, কোথায় যাবে?

বিভিন্ন সেবামূলক কাজে যারা জড়িত, তাদের নিরাপত্তা ও ঝুঁকিভাতার কথা কোথাও নেই, অভিযোগ করে রিজভী বলেন, এতদিন ধরে গণমাধ্যমকে সহায়তার যে কথা বলা হয়েছিল, তাও প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্যাকেজে উল্লেখ নেই। অথচ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গণমাধ্যমের কর্মীরা দায়িত্ব পালন করছেন।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে লুকোচুরির অভিযোগ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকারের হেয়ালি দেশের জনগণকে অসহায় করে তুলেছে। সরকার বিষয়টি নিয়ে জনগণের সঙ্গে কেন এত লুকোচুরি করছে, এটি বোধগম্য নয়।

আওয়ামী লীগ নেতাদের বিভিন্ন মন্তব্য প্রসঙ্গে রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগের কথার জবাব দিয়ে বিএনপি সময় নষ্ট করতে চায় না। আমরা বরং সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলতে চাই, যেহেতু রাষ্ট্রীয় অর্থ, রাষ্ট্রীয় যন্ত্র আপনাদের হাতে, সেহেতু এই মুহূর্তে দেশের জনগণের পাশে দাঁড়ানো আপনাদের দায়িত্ব।

তিনি বলেন, দেশের হাজার হাজার গার্মেন্টস শ্রমিকের সঙ্গে সরকার যে আচরণ করেছে, এটি কোনো সভ্য রাষ্ট্র কিংবা সভ্য সরকারের আচরণ হতে পারে না। কারখানা খোলা ও বন্ধ রাখা নিয়ে লুকোচুরি খেলা খুবই ন্যক্কারজনক।

চাকরি হারানোর ভয়ের কাছে মৃত্যুভয়ও হার মেনেছে, উল্লেখ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, পোশাক শ্রমিকসহ নিম্ন আয়ের মানুষজন সরকারের বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করে রাস্তায় নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফিরতে শুরু করেন কর্মস্থলে। গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় হাজার হাজার শ্রমিক ট্রাকে করে, কেউবা হেঁটে মাইলের পর মাইল পথ পাড়ি দিয়ে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলার কর্মস্থলে গেলেন। যে পরিমাণে জনসমাগম হলো, তা সত্যিই আতঙ্কের। আমাদের মনে ভয় জাগছে। জানি না, আমরা ভয়াবহ পরিণতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছি কিনা।

তিনি বলেন, ‘মন্ত্রীরা আশ্বাস দিয়ে বলতেন, এই তো আর কিছুদিন পর আমরা কানাডায় রূপান্তরির হবো। কিন্তু এখন শুনি ডাক্তারের পিপিই নাই।’


ঢাকা/সাওন/রফিক