ঢাকা, মঙ্গলবার, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৯ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

মাথার ত্বকে সোরিয়াসিস হলে কী করবেন?

এস এম গল্প ইকবাল : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৮-২২ ৩:১৬:৩৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৮-২২ ৪:১৮:৫১ পিএম
প্রতীকী ছবি

এস এম গল্প ইকবাল : স্কাল্প বা মাথার ত্বকে চুলকানি অথবা খুশকি হলে উপশমের জন্য শ্যাম্পুই যথেষ্ট হতে পারে, কিন্তু স্কাল্প সোরিয়াসিস বা মাথার ত্বকের সোরিয়াসিসের ক্ষেত্রে উপশম অত সহজে হয় না।

স্কাল্প সোরিয়াসিস হলো মাথার ত্বকে উদ্ভূত রুপালি আঁশযুক্ত লাল বা গোলাপি আস্তরণ যেখানে চুলকানি, ব্যথা ও জ্বালাপোড়া হতে পারে। শরীরের অন্যান্য স্থানের সোরিয়াসিসের মতো স্কাল্প সোরিয়াসিসের কারণও স্পষ্ট নয় এবং দুঃখের সংবাদ হচ্ছে এর কোনো নিরাময় নেই। কিন্তু সুখবর হলো, কিছু নিরাপদ ও কার্যকর চিকিৎসায় সোরিয়াস থেকে উল্লেখযোগ্য উপশম পাওয়া যায়। এ প্রতিবেদনে স্কাল্প সোরিয়াসিসের পাঁচ চিকিৎসা উল্লেখ করা হলো।

* শ্যাম্পু ও সল্যুশন

সেলসান ব্লু ও হেড অ্যান্ড শোল্ডারসের মতো ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু হালকা স্কাল্প সোরিয়াসিসের ক্ষেত্রে সহায়ক হতে পারে, কিন্তু মাঝারি থেকে তীব্র স্কাল্প সোরিয়াসিস ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণের জন্য চিকিৎসকের প্রেসক্রাইব করা শ্যাম্পু বা সল্যুশন প্রয়োজন হবে, বলেন নিউ ইয়র্ক সিটিতে অবস্থিত দ্য ডার্মাটোলজি স্পেশালিস্টসের সিইও ও ডার্মাটোলজিস্ট ববি বুকা।

বিভিন্ন ধরনের প্রেসক্রিপশন স্ট্রেংথ শ্যাম্পু পাওয়া যায়, যা আপনার চিকিৎসকে সাজেস্ট করতে পারেন। অতীতে প্রায়সময় টার-বেসড শ্যাম্পু ব্যবহার করা হতো, কিন্তু এটি দুর্গন্ধ ও দাগ সৃষ্টি করে বলে অনেক ডার্মাটোলজিস্ট বর্তমানে এই শ্যাম্পু প্রেসক্রাইব করেন না।

কানেক্টিকাটে অবস্থিত মডার্ন ডার্মাটোলজির বোর্ড-সার্টিফায়েড ডার্মাটোলজিস্ট রোন্ডা কিউ. ক্লেন তার রোগীদেরকে জিংক অথবা সেলেনিয়াম সালফাইড শ্যাম্পু প্রেসক্রাইব করেন এবং এই শ্যাম্পু ব্যবহারের পাশাপাশি স্টেরয়েড শ্যাম্পুও ব্যবহার করতে পরামর্শ দেন, কখনো কখনো অ্যান্টিফাঙ্গালও সাজেস্ট করেন। যেদিন স্টেরয়েড শ্যাম্পু বা অ্যান্টিফাঙ্গাল ব্যবহার করবেন সেদিন জিংক বা সেলেনিয়াম সালফাইড শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না এবং বিপরীতভাবেও একই কথা প্রযোজ্য।

প্রেসক্রিপশন শ্যাম্পু কতদিন পরপর ব্যবহার করতে হয়? এ প্রসঙ্গে ডা. বুকা বলেন, ‘কিছু রোগীদেরকে শুরুতে প্রতিদিন ব্যবহার করার পরামর্শ দেয়া হয় এবং কিছু সপ্তাহ বা মাসের পর দুই সপ্তাহ বা মাসে একবার এই শ্যাম্পু ব্যবহারের প্রয়োজন হয়।’

কিন্তু চিকিৎসকদেরকে কিছু বিষয় বিবেচনা করতে হয়। ডা. ক্লেন বলেন, ‘কার জন্য কোন টপিক্যাল ট্রিটমেন্ট সবচেয়ে ভালো হবে তা নির্ণয় করতে রোগীদের চুল ধোয়ার অভ্যাস সম্পর্কে জানতে হবে। উদাহরণস্বরপ, কিছু নারীর প্রতিদিন চুল ধোয়ার প্রবণতা নেই- তাদের ক্ষেত্রে সপ্তাহে দুই বা তিন বার রাতে সল্যুশন ব্যবহারের পরামর্শ দেয়া যেতে পারে, তারা সল্যুশন ব্যবহার করে ঘুমিয়ে পড়বেন এবং সকালে ওঠে চুল ধুয়ে নেবেন।’

* মুখে খাওয়ার ওষুধ

টপিক্যাল ট্রিটমেন্টে যথেষ্ট উপশম পাওয়া না গেলে একজন ডার্মাটোলজিস্ট সিস্টেমিক ট্রিটমেন্টে অগ্রসর হতে পারেন। স্কাল্প সোরিয়াসিসের চিকিৎসায় প্রতি সপ্তাহে একবার থেকে শুরু করে প্রতিদিন দুইবার সেবন করার মতো বড়ি রয়েছে- এটি নির্ভর করছে ওষুধের ওপর। একটি কমন প্রেসক্রিপশন ওষুধ হলো আপ্রিমিলাস্ট।

কিছু রোগীর জন্য অন্য একটি অপশন হলো অ্যাসিট্রেটিন, একটি ভিটামিন এ ডেরিভেটিভ। কিন্তু বাচ্চা নিতে ইচ্ছুক নারীরা এই ওষুধ সেবন করতে পারবেন না, কারণ এটি সেবনের তিন বছরের মধ্যে একজন নারী গর্ভবতী হতে পারেন না।

অন্যান্য ওষুধও (যেমন- মিথোট্রেক্স্যাট ও সাইক্লোসপোরিন) বিবেচনা করা যেতে পারে, যদিও এসব ওষুধ ব্যবহারে মারাত্মক পার্শপ্রতিক্রিয়া হতে পারে। ডা. ক্লেন বলেন, ‘মিথোট্রেক্স্যাট লিভারে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে এবং সাইক্লোসপোরিন কিডনি ও ব্লাড প্রেশারের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।’

* লাইট বা লেজার থেরাপি

ন্যারো-ব্যান্ড ইউভিবি ফটোথেরাপি নিতে একজন রোগীকে প্রতি সপ্তাহে এক থেকে দুইবার একজন ডার্মাটোলজিস্টের অফিসে যেতে হতে পারে। অধিকাংশ ডার্মাটোলজিস্ট এখন আর ইউভিএ রশ্মি সমৃদ্ধ ফুল-স্পেকট্রাম লাইট ব্যবহার করেন না, কারণ এটি স্কিন ক্যানসারের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে।

ফটোথেরাপি নিতে আপনার মনে ভয় কাজ করতে পারে, কিন্তু ভয় পাওয়ার কিছু নেই- আপনি একটি ভার্টিক্যাল বক্সে প্রবেশ করবেন যেখানে অনেকগুলো লাইট থাকবে। ডা. ক্লেন বলেন, ‘১০ থেকে ১২ সপ্তাহের আগে সর্বোচ্চ উপকারিতা দেখবেন না এবং অনেক রোগী ছয় মাস পর্যন্ত এই থেরাপি চালিয়ে যান। এছাড়া থেরাপি নেয়ার জন্য হোম লাইট বক্সও রয়েছে।’ যদি আপনার মাথার ত্বক বা শরীরের অন্যান্য অংশে সোরিয়াসিস থাকে, তাহলে লাইট থেরাপি সাধারণত একটি ভালো চিকিৎসা।

আরেকটি উপায় হলো ফটোথেরাপি কম্ব। এ প্রসঙ্গে ডা. বুকা বলেন, ‘সোরিয়াসিসের চিকিৎসায় মাথার ত্বকে ইউভিবি রশ্মি ফেলার জন্য বিশেষ চিরুনি রয়েছে- এই চিরুনিতে ইউভিবি রশ্মি নির্গতকারী লাইট রয়েছে। এটি হলো স্টেরয়েডের ব্যবহার ছাড়াই মাথার ত্বকের প্রদাহ দমনের অন্যতম সেরা উপায়।’

এছাড়া স্কাল্প সোরিয়াসিসের চিকিৎসায় এক্সসাইমার লেজারও রয়েছে- এটি হলো এক ধরনের আল্ট্রাভায়োলেট লেজার- এই লেজার ব্যবহারের জন্য প্রতিসপ্তাহে দুই থেকে তিনবার চিকিৎসকের অফিসে যেতে হবে। ডা. ক্লেন বলেন, ‘এই লেজার মাথার ত্বকে ভালো কাজ করে, কারণ এটি টার্গেটেড থেরাপির চেয়েও বেশি কিছু এবং আমরা সেখানে লেজার ফেলি যেখানে প্লেক বা আঁশ দেখি।’

* বায়োলজিকস

গত ১০ বছরে ডার্মাটোলজি ও সোরিয়াসিসের চিকিৎসায় সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হলো বায়োলজিক থেরাপি, বলেন ডা. বুকা। এটি হলো ইনজেকশন বা ইনফিউশন যা এক সপ্তাহ অন্তর অন্তর অথবা কখনো কখনো প্রতি ছয় সপ্তাহে অথবা কখনো কখনো প্রতি তিন মাসে গ্রহণ করতে হয়।

সোরিয়াস শরীরে বেশি মাত্রায় ছড়ালে অথবা রোগীর সোরিয়াটিক আর্থ্রাইটিসও থাকলে সাধারণত বায়োলজিক থেরাপি ব্যবহার করা হয়। ডা. বুকা বলেন, ‘বায়োলজিকস খুব নিরাপদ এবং এ চিকিৎসায় সফলতার হার ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ।’ কিন্তু যে কেউ এই চিকিৎসা নিতে পারেন না, কারণ এটি খুব ব্যয়বহুল।

* ঘরোয়া চিকিৎসা

যদি আপনি ঘরোয়া চিকিৎসায় আগ্রহী হন, তাহলে আপনার পছন্দের চিকিৎসাটি নিরাপদ কিনা জানতে সবসময় ডার্মাটোলজিস্টের সঙ্গে কথা বলুন। স্কাল্প সোরিয়াসিসের ক্ষেত্রে কিছু ঘরোয়া চিকিৎসা সামান্য অবদান রাখতে পারে, বিশেষ করে সোরিয়াসিস হালকা হলে। কিন্তু বড় ধরনের উপশমের জন্য আপনাকে আরো শক্তিশালী অথবা ক্লিনিক্যালি প্রমাণিত উপায় অবলম্বন করতে হবে।

ডা. বুকা বলেন, ‘অ্যানেকডোটাল এভিডেন্স (ক্লিনিক্যালি প্রমাণিত নয়) রয়েছে যে সোরিয়াসিসের লোকেরা আকুপাঙ্কচারে চমৎকার ফল পেয়েছেন। এছাড়া কিছু চীনা হার্বাল মেডিসিন সোরিয়াসিসে সহায়ক হতে পারে। কিন্তু আপনাকে এটা মনে রাখতে হবে যে, এসব ঘরোয়া চিকিৎসায় সোরিয়াসিস পুরোপুরি উপশম হতে পারে না। আমি বিশ্বাস করি যে হলিস্টিক মেডিসিন মাথার ত্বকের স্বাস্থ্যোন্নয়নে উল্লেখযোগ্য সাহায্য করতে পারে। যেসব রোগী মেডিটেশন, ম্যাসাজ, স্ট্রেস কমানোর প্রচেষ্টা ও আকুপাঙ্কচার করেন তাদের স্কাল্প সোরিয়াসিসের কিছু না কিছু উন্নতি হয়।’

তথ্যসূত্র : প্রিভেনশন

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২২ আগস্ট ২০১৯/ফিরোজ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন