ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

১১ ব্যক্তিকে হত্যায় সব পরিকল্পনা করেন জিয়া

মাকসুদুর রহমান : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৮-০৯ ৭:০০:৩৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৮-১৯ ৪:৫৭:৪৬ পিএম

মাকসুদুর রহমান : জিয়াউল হক ওরফে বরখাস্তকৃত মেজর জিয়া উগ্রবাদী নানা কর্মকাণ্ডের পরিকল্পনাকারী। তিনি ব্লগার, প্রকাশক ও সমকামীদের অধিকার নিয়ে কাজ করা ১১ ব্যক্তিকে হত্যায় সব ধরনের পরিকল্পনা করেন বলে জানতে পেরেছে পুলিশ।

পুলিশের কাছে তথ্য আছে, নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের (এবিটি) প্রধান জিয়া আগের মতো সক্রিয় নেই। এবিটির আধ্যাত্মিক নেতা জসীমুদ্দিন রাহমানীকে গ্রেপ্তারের পরই মূলত জিয়ার তথ্য বের হয়ে আসে। তার হাতেই দায়িত্ব পড়ে দেশকে অস্থিতিশীল করার পাশাপাশি সরকারকে বেকায়দায় ফেলার ও নানা অপকর্মের পরিকল্পনা করার। জঙ্গি হামলা, হত্যাসহ নানা পরিকল্পনা শুরু করেন তিনি। অন্তত ৫০ জন দুর্ধর্ষ কিলারও তৈরি করেন জিয়া। এদের মধ্যে কয়েকজন কিলার বা জঙ্গি গ্রেপ্তার হলেও অনেকেই এখনো পলাতক।

পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম রাইজিংবিডিকে বলেন, মেজর জিয়া কোথায়, তা এই মুহূর্তে নিশ্চিত করে বলতে পারছি না। তাকে ধরতে ২০ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছিল পুলিশ। তা এখনো বলবৎ আছে। তবে জিয়া যেন আগের মতো জঙ্গিবাদ উস্কে দিয়ে মানুষ হত্যায় মেতে উঠতে না পারেন সেজন্য গোয়েন্দারা কাজ করছে।

জিয়ার কর্মকাণ্ডের কথা উল্লেখ করে এ গোয়েন্দা কর্মকর্তা আরো বলেন, ব্লগার, প্রকাশক, এমনকি সমকামীদের অধিকার নিয়ে কাজ করা ব্যক্তিদের হত্যার ঘটনাগুলো গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হয়। তদন্ত করতে গিয়ে দেখা গেছে, উগ্রবাদী চিন্তা থেকে হত্যাকাণ্ডগুলো হয়েছে। এসবের পরিকল্পনা, কিলার তৈরি, এমনকি অস্ত্রের যোগান দেন জিয়া।

জিয়ার মোবাইল ফোনের কল রেকর্ড পর্যালোচনা, ই-মেইল অ্যাকাউন্ট, ফেসবুক ও টুইটার অ্যাকাউন্ট ঘেঁটে হত্যা পরিকল্পনার অনেক তথ্য পাওয়া গেছে বলে গোয়েন্দা সূত্র জানিয়েছে।

সূত্রটি আরো জানায়, ২০১৫ সালে বিজ্ঞানমনস্ক লেখক অভিজিৎ রায় হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনাকারী হিসেবে জিয়ার নাম আসে। ২০১৩ থেকে ১৫ সালের মধ্যে পাঁচজন ব্লগার ও প্রকাশক এবং সমকামীদের অধিকার নিয়ে কাজ করা দুই ব্যক্তিকে হত্যা করে আনসারউল্লাহ বাংলা টিম বা এবিটি। মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে জিয়ার নাম আসে। একে একে তেজগাঁওয়ে ব্লগার ওয়াশিকুর রহমান বাবু, সিলেটের সুবিদবাজার এলাকায় ব্লগার অনন্ত বিজয় দাশ, রাজধানীর গোড়ানে ব্লগার নীলাদ্রি চ্যাটার্জি ওরফে নিলয়কে হত্যা, আজিজ সুপার মার্কেটে নিজ কার্যালয়ে জাগৃতি প্রকাশনীর কর্ণধার ফয়সল আরেফিন দীপন এবং পল্লবীতে ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দারকে হত্যাকাণ্ডের সবকিছু হয় জিয়ার পরিকল্পনায়।

গ্রেপ্তারের পর গোয়েন্দাদের জিজ্ঞাসাবাদে এবিটির এক জঙ্গি বলেছে, হত্যাকাণ্ডগুলো কীভাবে সংঘটিত করতে হবে, কোথায় কিলার গ্রুপের কয়জন অংশ নেবে, তাদের হাতে অস্ত্র সরবরাহ, ঘটনার পর কীভাবে পালিয়ে আসতে হবে বা ঘটনার আগে স্থানগুলো রেকি করা সবকিছুই জিয়ার পরিকল্পনায় হয়েছে।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/৯ আগস্ট ২০১৯/মাকসুদ/রফিক

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন